আদম


মিজান খন্দকার
আগোত ট্যার পাং নাই, এ্যালা দেখোং, মোর শইল্লেতো শিকল বান্ধা, মুই শিকলোতে বান্ধা মানুষ।
চৌখ দুইটা দিয়া দ্যাখোং না কিছুই, খালি নিন্দে পারোং, নিন্দে হয়া থাকোং বেহুঁশ। 
মোরে ভিতর‌্যা নড়োং চড়োং, কাঁয় মুই ? মুইও কি হং আদমের সন্তান ?
না আলদা কোনো জাত, জন্ম হয়াই যাঁয় হয় অন্য মাইনষের গোলাম !
মোকে মোরে অচেনা নাগে। নদীর পানিত মুখ দ্যাখোং, দ্যাখোং মোর চেহারা ক্যাদন।
দ্যাখোং, নড়ে চড়ে একজন, একদম মাইনষের মতোন। 
পানির ভিতর‌্যা বাস করে খোয়াজ খিজির, পীর তাঁয়।  নদীর পানি তাতো মিছা কতা কয়।
মানুষ তো নোয়াং মুই, তেঁও পানিত ক্যা চেহারা মোর মাইনষের মতোনে হয় ?  
মুই তো মানুষ নোয়াং, মফিজ মুই। মুই মফিজের জাত।                 
গেরাম আর ভিটামাটি ছাড়ি বিদ্যাশোতে খুজি বেড়াং এক গ্রাস ভাত।

(আও পত্রিকায় পাঠানো লেখা থেকে)

Post a Comment

Previous Post Next Post